আমরা কেমন যেন দিন দিন বড় হয়ে যাছি, ব্যাপারটা আমার ভাল লাগছে না আর কয়েকদিন পর আমাদেরকে চাকুরীর জন্য ছুটতে হবে মাথায় প্রায়ই এসব চিন্তা আসছে সিনিয়র ভাইদের দেখে, তাদের উদ্বেগৎকন্ঠা দেখে আমরা বুয়েটে প্রবেশ করার পর থেকে যে ব্যাচটিকে সবচেয়ে কাছে পেয়েছি তা হল ০১ ব্যাচ আর মাত্র কয়েকদিন পর তারা পাশ করে বের হয়ে যাবে, অনেকেই চাকুরী পেয়ে গেছে বিক্ষিপ্ত কিছু বিয়ে তো আছেই আমি ব্যাক্তিগত ভাবে এই ব্যাচটা কে খুব কাছ থেকে দেখেছি হল উঠে প্রথমেই পাই হাসান ভাইকে, আমার একমাত্র রুমমেট হিসেবে তখন উনিই আমার বুয়েট সম্পর্কিত শিক্ষাগুরু প্রায়ই আমি উনাকে বিভিন্ন প্রশ্ন করতাম C.T. কি, P.L. কি, Group fight কি, ছাত্রষ্টুডেন্ট এর ব্যাপারটা কিআরো কত প্রশ্ন

তারপর পাই পাশের রুমের শাওন ভাইকে গত তিন বছরে আমার এমন কিছুই নাই যা আমি উনার কাছে গোপন করেছি শাওন ভাইও আমার কাছে তার সবকিছু শেয়ার করত প্রতিটি পদক্ষেপে পেয়েছি তার পরামর্শ শাওন ভাই সম্পর্কে পরে আরেকটি ব্লগ লিখব, নতুবা এই ব্লগ আর শেষ হবেনা

হাসান ভাই, শাওন ভাই ছাড়াও ০১ বাচের যাদের সাথে হৃদ্যতা গড়ে উঠেছে তারা হল হাসনাত ভাই, জিয়া ভাই, সুমন ভাই, মেসবাহ্ ভাই, কুশল ভাই, জাকারিয়া ভাই, কনক ভাই, পলাশ ভাই, অপু ভাই , ঝুমুর আপু সহ আরো অনেকেকিছুদিন পরে এমন একটা দিন আসবে যখন তারা সবাই একসাথে বিদায় নিবে তখন আর ক্যাম্পাস বা হল তাদের দেখা যাবে না, যোগাযোগ হবে কেবল নেটে কালেভদ্রে কেউ কেউ হয়ত বুয়েটে আসবে

নাহ্ আমার ভাবতেই খুব খারাপ লাগছে এইতো আমাদের ব্যাচের রিপন, সুইম, তিতির, মনির, মেহেদি ইতিমধ্যে বিয়ে করে ফেলেছে খোঁজ করলে আরও পাওয়া যাবে রিপন তো বাবাও হয়ে গেছে !

এখন আমরা বন্ধুরা একসাথে হলে প্রায়ই ক্যারিয়ার নিয়ে কথা বলি আশেপাশের কর্মচারীরা আমাদের স্যার বলে ডাকে এখন আমরা হঠা করে কেউ কোন কাজ করতে বললে বা কথাও যেতে বললে রাগান্বিত হই, আগে থেকে না জানানোর জন্য (মানে অ্যাপয়েন্টমেন্ট না করার জন্য !)

আমার প্রিয় বন্ধু রাফি ইতিমধ্যে দিন গোনা শুরু করে দিয়েছে আমাদের পাশ করে বের হতে আর নাকি ৫৩৬ দিন বাকী

সিভিল বিল্ডিং এর দেয়ালে একটা লেখা আছে
We are at first BUETIAN, than Engineer.

কথাটা অনেকাংশেই সত্যি !

আমি হাঠাৎ করে এরকম একটা ব্লগ লেখার কারণ ০১ ব্যাচ আমি ইদানিং তাদের মাঝে অদ্ভুত কিছু একটা লক্ষ্য করছি তারা ক্লাস থেকে এসে বলছে আজ আমাদের শেষ ক্লাস টেস্ট দিলাম, আজ আমরা শেষ প্র্যাক্টিক্যাল করলাম আজ ঝুমুর আপু শাড়ি পরে এসেছিল তাদের বুয়েট জীবনের শেষ পরীক্ষাকোনো কোনো গ্রুপ ম্যাগাজিন বের করেছে সেদিন জাকারিয়া ভাই আমাদের খাওয়ালেন, উনি সিংগাপুর চলে যাবেন

আমার খুব দিব্য দৃষ্টিতে দেখতে ইচ্ছে করে আজ থকে কয়েক বছর পর আমরা কি অবস্থায় থাকব আমি আর আমার বাল্যবন্ধু জিতু প্রায়ই উদ্বেগ প্রকাশ করি আচ্ছা আমরা কি বিয়ে টিয়ে করে ফেলার পরও এরকম কম্পিউটার গেমস্ নিয়ে মেতে থেকব? টিভিতে রেসলিং দেখে শিহরিত হব ? কমিক্স পরে আনন্দ পাব ? পরক্ষণেই আবার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা করি না, আমরা সবসময় এমনই থাকব অন্তত আমি আর তুই

কিন্ত বয়সটা বড্ড বেরসিকের মত বেড়ে চলেছে …

Advertisements